আবরার আতাহার বরাবরই ভিন্নতা উপহার দিয়েছেন তার কাজগুলোতে। গতানুগতিকের বাইরে এসে যে কয়জন নির্মাতা প্রতিনিয়ত ভিন্নধর্মী কনটেন্ট ব্যতিক্রমী নির্মান নিয়ে হাজির হচ্ছেন তাদের মধ্যে আলোচিত একজন হচ্ছেন এই তরুণ...

এই সময়ে এসে আমাদের দেশে গতানুগতিকের বাইরে এসে যে কয়জন নির্মাতা প্রতিনিয়ত ভিন্নধর্মী কনটেন্ট ব্যতিক্রমী নির্মান নিয়ে হাজির হচ্ছেন তাদের মধ্যে আলোচিত একটি নাম আবরার আতাহার। বিজ্ঞাপন, নাটক বা ওয়েবফিল্ম বিনোদনের বিভিন্ন মাধ্যমে সংখ্যায় কম হলেও তার প্রতিটা কাজই দর্শকদের কাছ থেকে প্রশংসা পায়। আজ এই নতুন সময়ের গুনী নির্মাতার জন্মদিন উপলক্ষে তাকে নিয়ে এই বিশেষ ফিচার। 

শর্টফিল্ম 'লাইফ ইন আদার ওয়ার্ডস' নামের একটি শর্টফিল্ম তাকে ভিন্নধারার নির্মাতা হিসেবে আলোচনায় নিয়ে আসে। পরবর্তীতে বায়োস্কোপে প্রচারিত টেলিফিল্ম 'কলি ২.০' তাকে ব্যাপক জনপ্রিয়তা এনে দেয়। এই টেলিফিল্মের সফলতা সাধারণ মানুষের কাছেও আবরার আতাহারকে পরিচিতি এনে দেয়। ক্রিকেটের নানা মজার বিষয় নিয়ে তার পরিচালিত নাটক ‘গলিতে গন্ডগোল’ প্রশংসিত হয়। তবে ভারতীয় ওটিটি প্ল্যাটফর্ম জি-ফাইভের প্রথম বাংলাদেশী কনটেন্ট ‘মাইনকার চিপায়’ তাকে নির্মাতা হিসেবে একটি স্বতন্ত্র জায়গা এনে দেয়। আফরান নিশো, শরীফুল রাজ, শ্যামল মাওলা অভিনীত এই ওয়েবফিল্ম বাংলাদেশের বাইরে ভারতেও প্রশংসা কুড়িয়েছে। 

আবরারের শৈশব এবং কৈশোর কেটেছে একা একা। ক্লাস ফাইভ পর্যন্ত ঢাকায় ছিলেন তারপর ভারতে চলে গিয়েছিলেন তিনি। ইউনিভার্সিটি শেষ করে আবার ঢাকায় ফেরা। বাবা মারা গেছেন অনেক আগে। পরিবারে একটাই ছেলে হবার কারনে গল্প বলার সঙ্গী খোঁজার একটা ব্যপার ছিলো। একটা সময় মিউজিকের সাথে সখ্যতা গড়ে উঠে। গানে ড্রাম বাজিয়ে নিজের একাকীত্ব দূর করার একটা চেষ্টা ছিলো আবরারের। 

তবে এক সময় তার মনে হতে লাগলো এই পদ্ধতিটা অনেক লিমিটেড একটা বিষয়। তারপরে সময়ের পরিক্রমায় এখন পরিচালনায় মাধ্যমে নিজের গল্প এবং আইডিয়া অনেক মানুষের সাথে ছড়িয়ে দিতে পারছেন বলেই জানিয়েছেন তিনি একটি সাক্ষাৎকারে। 

সামনে তার পরিচালনায় মুক্তির অপেক্ষায় আছে সংগীতশিল্পী শায়ান চৌধুরী অর্ণবের বিভিন্ন সময়ে গাওয়া গান নিয়ে মিউজিক্যাল ডকুমেন্টারি ‘আধখানা ভালো ছেলে আধা মস্তান’। আবরার জানিয়েছেন, ‘আমরা একটা মিউজিক্যাল ডকুমেন্টারি করছি। এখানে অর্নবের ৮-১০টা গান থাকবে। পুরোনো যেসব গান ছিল সেগুলো একদম অন্য ডিজাইনে পারফর্ম করা হবে। ছোট ছোট কিছু কথোপকথন থাকবে। এই চলচ্চিত্রে পাওয়া যাবে এক অন্য অর্ণবকে। ভক্তরা এমন অর্ণবকে আগে দেখেননি। গান ও গানের বাইরে অর্ণব কেমন, তা-ই উঠে আসবে ‘অর্ণব: আধখানা ভালো ছেলে আধা মস্তান’ চলচ্চিত্রে। 

আবরার আতহার আরো বলেন, ‘আমি আসলে অর্ণব ভাইকে অনেক আগে থেকে চিনি। আমি তাঁকে যেভাবে চিনি, তিনি আমাকে যেভাবে জানেন, অন্যরা তাঁকে সেভাবে জানেন না। আমাদের দুজনের মধ্যে ক্রেজি আন্ডারস্ট্যান্ডিং আছে। এই আধুনিক যুগে সবাই একজন পারফর্মারকে দেখে, সত্যিকারের শিল্পীর ভেতরের যে কমপ্লেক্স, তা দেখতে পায় না। তিনি যে পারফর্মারের চেয়েও বেশি কিছু, তা–ই দেখাতে চেয়েছি। খুব কাছের মানুষকে যে পয়েন্ট অব ভিউ থেকে দেখতে পেয়েছি, সেটাই এখানে তুলে ধরা হবে।

উল্লেখ্য আগামী কোরবানির ঈদে যাত্রা শুরু করতে যাওয়া দেশীয় ওটিটি প্ল্যাটফর্ম ‘চরকি’ তে এই ৭০ মিনিটের মিউজিক্যাল অরিজিনাল রিলিজ দেয়া হবে। অমিতাভ রেজা, আদনান আল রাজীব, শিহাব শাহীন, মিজানুর রহমান আরিয়ানের মতো দেশের গুনী এবং দক্ষ নির্মাতাদের সাথে সাথে আবরার আতাহারও হাজির হচ্ছেন তার চলচ্চিত্রটি নিয়ে। ‘চরকি’ এবং তাদের আপকামিং প্রজেক্ট গুলো নিয়ে এমনিতেই দর্শকদের মাঝে আগ্রহ এবং আলোচনা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এক্ষেত্রে বাজেট, নির্মানের মুন্সিয়ানা এবং দক্ষ শিল্পী কলাকুশলীদের অন্তর্ভুক্ত হওয়া সব মিলিয়ে ‘চরকি’ হতাশ করবেনা বলেই আশা করা যায়।  

করোনা পরিস্থিতি উদয় না হলে আবরার আতাহার এতোদিনে নিজের প্রথম সিনেমার কাজ শুরু করে দিতেন। গল্প, প্রযোজক, শিল্পী তালিকা প্রায় চূড়ান্ত ছিল। কিন্তু হঠাৎ করে করোনা হানা দেয়ায় আপাতত কাজ শুরু করছেন না তিনি এবং তার টিম। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে অফিশিয়াল ঘোষনা দেবার মাধ্যমে নিজের প্রথম সিনেমা নির্মানের কাজ শুরু করবেন এই তরুন গুনী নির্মাতা। 

আবরার আতাহার বরাবরই ভিন্নতা উপহার দিয়েছেন তার কাজগুলোতে। এখন ওটিটি প্ল্যাটফর্মের কল্যানে কাজের বাজেট এবং কারিগরি নানা ধরনের সুযোগ প্রাপ্তির বিষয়টা সহজলভ্য হওয়ায় সামনের দিনগুলোতে তিনি তার নির্মানের মুন্সিয়ানা দিয়ে প্রতিটি কনটেন্ট নতুনত্বের সাথে উপস্থাপন করবেন- এটাই কামনা।


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা