কখনো অর্ণব বলেছেন শৈশবের কথা, কখনো সুনিধির সাথে প্রেমে মজেছেন। অর্ণবের বাবা-মা আর প্রিয় কুকুর দুব্বা ব্যক্তি অর্ণবকে চিনিয়েছে। অর্ণবের গল্প বলতে গিয়ে বলা হয়ে গেছে মুক্তিযুদ্ধের গল্প, মুক্তির গানের গল্প, শাহবাগের গণজাগরণের গল্প, যাদবপুরের হোক কলরবের গল্প...

অর্ণব অর্থ সমুদ্র। সে সমুদ্রের পাশে বসেই জানা হল অর্ণবের জীবন। আবরার আতহার দর্শককে সঙ্গী করে করলেন অর্ণবের সমুদ্রমন্থন!

মিউজিক্যাল ফিল্ম! তাও অর্ণবকে নিয়ে! কী দারুণ এক সংযোজন! বাড়তি কোন কথা নেই। শুধু অর্ণবের গান আর অর্ণবের জীবন। যেন শুধুমাত্র আমার জন্য করা কোন প্রাইভেট কনসার্ট। অর্ণব গাইছে, বুনো বাজাচ্ছে, সুনিধি কোরাসে; সাথে দারুণ এক গানের দল। একটু পর পর গেয়ে উঠছে প্রিয় গানগুলো!

খয়েরী সবুজ নীলচে হলুদ কমলা কালো, 
কেমন করে বলছে কথা, বাসছে ভালো?

অর্ণবের জীবনের নানা রঙের গল্প, ভালোবাসার গল্প উঠে এসেছে এই মিউজিক্যাল ফিল্মে। ডকু ঘরানার এই কাজে অর্ণব নিজেই নিজের গল্প বলে গিয়েছেন। আবরার আতহার ক্যামেরা হাতে সঙ্গী হয়ে পিছু নিয়েছেন কেবল! সমুদ্রের স্রোত আর বৈরাগী বাতাস কখনো এসরাজ হয়েছে আবার কখনো পিয়ানো। অর্ণবের খালি গলার গানে নতুন সুর হয়েছে তারা। 

মিউজিক্যাল ফিল্মের বিভিন্ন দৃশ্যে অর্ণব

'আধখানা ভালো ছেলে, আধা মস্তান' মিউজিক্যালে অর্ণবের পুরো জীবন উঠে আসে নি। পুরো জীবনটাকে আনার চেষ্টাও করা হয় নি। শুধু অর্ণবের সাথে বৈঠকি ঢঙে আড্ডা হয়েছে। কখনো অর্ণব বলেছে শৈশবের কথা, কখনো সুনিধির সাথে প্রেমে মজেছে। অর্ণবের বাবা, মা আর প্রিয় কুকুর দুব্বা ব্যক্তি অর্ণবকে চিনিয়েছে। অর্ণবের গল্প বলতে গিয়ে বলা হয়ে গেছে মুক্তিযুদ্ধের গল্প, মুক্তির গানের গল্প, শাহবাগের গণজাগরণের গল্প, যাদবপুরের হোক কলরবের গল্প। 

অর্ণব আর অর্ণবের গান এমনই! প্রেম থেকে শুরু করে বিরহে অর্ণবকে চাই! রবীন্দ্রনাথ থেকে আব্বাসউদ্দিনে অর্ণবকে চাই।

মাঝে মাঝে তব দেখা পাই, চিরদিন কেন পাই না।

হাইলা লোকের লাঙ্গল বাঁকা
জনম বাঁকা চান্দ রে
জনম বাঁকা চান্দ
তার চাইতে অধিক বাঁকা, হায় হায়
তার চাইতে অধিক বাঁকা
যারে দিছি প্রাণ রে
দুরন্ত পরবাসী

অর্ণবকে চাই হোক কলরব প্রতিবাদে। অর্ণবকে চাই হারিয়ে গিয়ে বিবাগী হলে।

স্বপ্নে আমার শরীরে কেউ
ছড়ায় না শিউলি ফুল
আলোর আকাশ নুয়ে এসে ছোঁয় না কপাল।

শুধু ছুঁয়ে যায় অর্ণব, অর্ণবের গান। পুরনো গানে নতুন সুরে সে গানগুলো আবারও নতুন লাগে। অর্ণব একসময় গান শেষ করতে পারতো না কনসার্টে এসে, দর্শকরা নিজেরাই গেয়ে দিতো অর্ণবের হয়ে গানগুলো। এখন অর্ণব গান করেন, নিজেকে সামলে নিয়েছেন। আবারও কোন বৈঠকি আসরে অর্ণব গান শোনাবেন, আমরা তার আশেপাশে বসে থাকবো। একস্বরে গেয়ে উঠবো কখনো পুরনো না হওয়া গান-

সে যে বসে আছে একা একা
তার স্বপ্নের কারখানা চলেছে
আর বুড়ো বুড়ো মেঘেদের দল
বৃষ্টি নামার তাল গুনছে।


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা