বলিউডের কোটি কোটি রূপির যেসব নির্মাণ আমরা আশেপাশে দেখি, 'ঢিন্ডোরা'র কাছে এসে যেন তার অনেকগুলোই মার খেয়ে যায়৷ পাশাপাশি জীবন নিয়ে, সম্পর্ক নিয়ে, সমাজ নিয়েও 'ঢিন্ডোরা' জীবনবার্তার খুব প্রাসঙ্গিক ঢাক পিটিয়ে যায়৷ এবং ঠিক এভাবেই ঝালে-ঝোলে-অম্বলে অনবদ্য এক নির্মাণে পরিণত হয় 'ঢিণ্ডোরা!' 

একজন অভিনেতা কোনো একটা নির্মাণে একসাথে কয়টি চরিত্রে অভিনয় করতে পারে? সর্বোচ্চ হলে দুটি- তিনটি। তাইতো? কিন্তু যদি কখনো শোনা যায়, একজন অভিনেতা কোনো এক নির্মাণে একইসাথে দশটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন, তাহলে? চক্ষু চড়কগাছ হবে? সেটা হওয়াটাই স্বাভাবিক। এবং যদি জানা যায়, বিশেষ সেই নির্মাণটি চারশো মিলিয়ন মানুষ দেখেছে এবং সম্ভবত ভারতের সবচেয়ে জনপ্রিয় সিরিজে পরিণত হয়েছে, তখন প্রচণ্ড বিহ্বলতায় স্থানু হওয়াটাই বোধহয় সবচেয়ে বেশি প্রাসঙ্গিক হয়ে যায়। 

এরকমই বিস্ময়কর এক ঘটনা ঘটিয়েছেন ভুবন বাম। 'বিবি কি ভাইনস' নামের জনপ্রিয় ইউটিউব চ্যানেলের ক্রিয়েটর হিসেবে অনেকেই তাকে চেনেন। এই চ্যানেলে বিশেষ কিছু চরিত্রের মাধ্যমে তিনি সমাজ-রাজনীতি-অর্থনীতির নানা বিষয় নিয়ে স্যাটায়ার কন্টেন্ট বানাচ্ছেন গত পাঁচ বছর ধরে। তুমুল জনপ্রিয় এ ইউটিউবার আচমকা গত বছর ভাবলেন, তার এই প্রবল জনপ্রিয় চরিত্রগুলো নিয়ে একটা সিনেমা বানালে কেমন হয়! এমনিতেও পুরো পৃথিবী তখন থমকে আছে মহামারীর রোষে, ভুবন বাম নিজেও হারিয়েছেন বাবা-মা'কে, চারদিকে শোকের মাতম। নিজেকে ব্যস্ত রাখতেই ভাবতে বসলেন একটা সিনেমার গল্প নিয়ে। পরে সে সিনেমার গল্পকে আট পর্বের এক সিরিজে রূপান্তরিত করলেন। সিরিজের নাম দিলেন- ঢিন্ডোরা। যে 'ঢিন্ডোরা'তে দশটি চরিত্রে একাই অভিনয় করলেন। টানা ৪১ দিনের শ্যুটিং এ প্রতিদিনই প্রায় ১৫-১৬ ঘন্টা ধরে কাজ করতেন। ঘন্টা দেড়েক ঘুমাতেন৷ এভাবেই সৃষ্টি এই সিরিজের। যে সিরিজ এখন রীতিমতো কাঁপিয়ে দিচ্ছে গোটা উপমহাদেশকেই! 

কী আছে 'ঢিন্ডোরা'য়? আছে এক মিষ্টি গল্প। যে গল্পে মধ্যবিত্ত বাবলু একদিন হয়ে যান কোটি টাকার টিকেটের মালিক। একটু সতর্ক হয়ে পড়বেন। কোটি টাকার মালিক না, কোটি টাকার টিকেটের মালিক। টিকেট দেখিয়ে কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে টাকা আনবেন, তার আগেই দূর্ঘটনায় পড়েন তিনি। উপরি-পাওনা হিসেবে হারিয়ে ফেলেন স্মৃতি।  এদিকে তার স্ত্রী এবং ছেলে স্বপ্ন দেখছে, কবে স্মৃতি ফিরবে মানুষটির? কবে তারা রাতারাতি হয়ে যাবে বড়লোক? এভাবেই ক্রমশ অনিশ্চিত সাসপেন্সে সওয়ার হওয়া গল্পে ধীরে ধীরে হয় আরো কিছু চরিত্র। যুক্ত হয় নানামুখী লেয়ারও। যে লেয়ারে থাকে প্রেম, থাকে খুনসুটি। আক্রমন-পাল্টা আক্রমনের পাশাপাশি থাকে জীবনঘনিষ্ঠ কিছু বার্তাও। 'ঢিন্ডোরা' ক্রমশ হাল্কা ধাঁচের জমাটি গল্পের প্রতিনিধি হয়ে এগোতে থাকে পরিণতির দিকে।

সিচুয়েশনাল কমেডি ছিলো এই নির্মাণের অন্যতম প্রোটাগনিস্ট! 

'ফিল গুড' কন্টেন্ট বলতে আমরা যা বুঝি, 'ঢিন্ডোরা' সেটিই। শুরু থেকে শেষতক রঙিন এক গল্প। গল্প যেভাবে নানা চলকের শাখাপ্রশাখায় এপিসোড বাই এপিসোড এগিয়েছে, তাতে এতটুকু সময়ের জন্যে বিরক্ত হওয়ার উপক্রম নেই। প্রচণ্ড হিউমারে ঠাসা কথোপকথন, দারুণ সব সিচুয়েশনাল কমেডি, মেটাফোরে ক্রমশ প্রশ্নবিদ্ধ সমাজ-রাজনীতি, দুর্দান্ত সিনেম্যাটোগ্রাফী আর শেষে এসে মন ভালো হয়ে যাওয়া পরিণতি...একটা নির্মাণ থেকে আর বেশি কিই বা চাওয়ার থাকতে পারে?

গল্পে হয়তো নতুনত্ব খুব একটা নেই। কিন্তু গল্পের বয়ান এতটাই ছিমছাম, মুগ্ধ হবেন প্রায় শতভাগ দর্শক৷ তবে গল্প-বয়ানের চেয়েও বেশি মুগ্ধ হতে হবে ভুবন বামের অভিনয়ে। একাই যেভাবে দশটি চরিত্রের অবতার হয়ে টানলেন পুরো নির্মাণকে, অনবদ্য। কতটা ক্লান্তিকর ছিলো এ যাত্রা, দশরকম ভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করা কতটা কষ্টসাধ্য এক বিষয় ছিলো, সেটা ভেবে ক্রমশ গলদঘর্মও হচ্ছিলাম যেন৷ এবং যে যে চরিত্রে তিনি অভিনয় করছেন, তারাও নিজগুণে এতটাই স্বকীয়, চমকেছি বিস্তর। কোনো চরিত্রের কোনো খামতি নেই, নাটুকেপনা নেই, অতিরিক্ত বাড়াবাড়ির আদিখ্যেতা নেই, নিপাট সুন্দর। 

অনবদ্য ভুবন বাম! 

ভুবন বাম চাইলে এই নির্মাণকে অবলীলায় কোনো ওটিটি প্ল্যাটফর্মে দিতে পারতেন৷ কিন্তু সেটা করলে নিজের চ্যানেলের অডিয়েন্সের সাথে যে অন্যায় করা হবে, তা তিনি জানতেন। তাই তিনি তার নির্মাণকে আট সপ্তাহ ধরে মুক্তি দিলেন নিজের ইউটিউব চ্যানেলেই। বিনামূল্যে। এবং এভাবেই পুরো নির্মাণ হয়ে রইলো অসাধারণ এক শিক্ষা। যে শিক্ষা এটাই জানালো, গল্প এবং গল্প বলার ক্ষমতা থাকলে, কোনো অনলাইন প্ল্যাটফর্ম কিংবা কোনোরকম স্টারকাস্টের দ্বারস্থ হওয়া ছাড়াই অনবদ্য কন্টেন্ট বানানো যায়৷ অসাধ্যসাধন করা যায়। বলিউডের কোটি কোটি রূপির যেসব নির্মাণ আমরা আশেপাশে দেখি, 'ঢিন্ডোরা'র কাছে এসে যেন তার অনেকগুলোই মার খেয়ে যায়৷ পাশাপাশি জীবন নিয়ে, সম্পর্ক নিয়ে, সমাজ নিয়েও 'ঢিন্ডোরা' জীবনবার্তার খুব প্রাসঙ্গিক ঢাক পিটিয়ে যায়৷ এবং ঠিক এভাবেই ঝালে-ঝোলে-অম্বলে অনবদ্য এক নির্মাণে পরিণত হয় 'ঢিণ্ডোরা!'


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা