আরিয়ান খান হয়ত শাস্তি পাবেন বা মুক্তি পাবেন। তবে বাবা হিসেবে শাহরুখ খান নিজের জায়গাটা ক্লিয়ার করবেন কিনা জ্যাকি চ্যানের মতো, বা সেরকম 'জ্যাকি চ্যান' টাইপের বাবা হওয়ার ইচ্ছা তার আছে কিনা- সেটা সময়ই বলবে...

শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান মাদক কেসে জড়ানোর আগে আরও অনেক সেলেব্রিটির সন্তানের সাথেও এমন ঘটনা ঘটেছে। একজনের নাম বলছি, যিনি স্টারডমে শাহরুখকেও ছাড়িয়ে। নাম তার- জ্যাকি চ্যান। 

২০১৪ সালে জ্যাকি চ্যানের ছেলে জেসি মাদক সেবনের মামলায় আটক হন। নিজের ফ্ল্যাটে তিনি নিজের বন্ধু কোকাইয়ের সাথে মারিজুয়ানা সেবন করছিলেন। কোকাই নিজেও একজন তরুণ সুপারস্টার ছিলেন। এই সময়েই পুলিশ দুইজনকে গ্রেফতার করে। 

কোকাই যেখানে মাত্র ১৫ দিনের মাঝে জামিনে মুক্তি পেয়ে যান নিজের ক্ষমতা ব্যবহার করে, সেখানে জেসিকে ৩ বছরের সাজা শোনানো হয়। এর কারণ হল, জেসি শুধু নিজে ড্রাগ নেন নাই, নিজের ফ্ল্যাটে একজন মানুষকে রেখে ড্রাগ নেয়ার সুযোগ করে দিয়েছিলেন। আরেকটা ব্যাপার, সেই সময়ে জেসির বাবা জ্যাকি চ্যান চায়নার এন্টি ড্রাগ ক্যাম্পেইনের গুড উইল এম্বাসেডর ছিলেন। বাবা মাদকবিরোধী আলাপ করেন, আর তার ছেলে সম্পূর্ণ উল্টোপথের যাত্রী- হায় নিয়তি! 

ছেলে জেসির সঙ্গে জ্যাকি চ্যান

জেসি এরেস্ট হওয়ার পর জ্যাকি চ্যান তার ছেলের সাথে দেখা করতে যান নি। এমনকি নিজের কোন অর্থ বা ক্ষমতাও ব্যবহার করেনি নি ছেলেকে জেল থেকে বের করে আনার জন্য। কোর্টের কোন শুনানিতেও জ্যাকি চ্যান যান নাই। ৬ মাস সাজা কাটার পর জেসি মুক্তি পান।

যেদিন জ্যাকি চ্যানের ছেলের নাম মিডিয়ায় প্রকাশ পেল, জ্যাকি চ্যান চুপ থাকেন নি বা লোকচক্ষুর অন্তরালে চলে যান নি। মিডিয়ায় সবার সামনে এসে তিনি ক্ষমা চান। তিনি আরও বলেন- 

"এই ঘটনার জন্য অবশ্যই আমার ছেলে দায়ী, তবে বাবা হিসেবে আমারও দায় আছে। আমি হয়ত তাকে ঠিকঠাক নৈতিকতা শেখাতে পারিনি। হয়ত আমার ভরণপোষণে কোন সমস্যা ছিল, তাই হয়ত সে এই রাস্তায় গেছে। আমি আপনাদের সবার কাছে ক্ষমা চাই। কখনোই ড্রাগসের দিকে যাবেন না, ড্রাগস সবার জন্যই খারাপ। আমার ছেলের এই কর্মকাণ্ডে আমি খুবই লজ্জিত। আমি এই সময়কার বাচ্চাদের বলব, তারা যেন আমার ছেলের কাজ দেখে শিক্ষা নেয়। এরকম কাজ যেন তারা না করে। বাবা হিসেবে আমি আজ ব্যর্থ। আর আমার ছেলের পক্ষ থেকে আমি ক্ষমা চাচ্ছি।"

জেল থেকে বের হওয়ার পর জ্যাকি চ্যান ছেলে সম্পর্কে অতিরিক্ত কোন উচ্ছ্বাস দেখাননি। ছেলেও প্রচন্ড অভিমান করেছিল বাবার উপরে এই ব্যাপারে যে, এতদিন কেন আমাকে একবারও জেলে দেখতে যাননি? তবে সময়ের সাথে সাথে ছেলে বুঝতে পারেন, বাবার এই ব্যবহারই সঠিক ছিল। 

সানফ্রান্সিসকো ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে শাহরুখ খান গিয়েছিলেন অনেক বছর আগে। সেখানে তার 'মাই নেম ইজ খান' সিনেমাটি দেখানো হয়। 'রাশ আওয়ার' সিনেমার পরিচালকের সাথে বেশ ভাল একটা আড্ডা হয় খান সাহেবের। খান সাহেবকে চমকে দিয়ে ভিডিও কলে সেখানে হাজির হন জ্যাকি চ্যান। জ্যাকি চ্যানকে দেখে শাহরুখ বলেন- "আমার ছেলে আরিয়ান যখন জন্ম নেয়, তখন তাকে প্রথমবারের মত দেখে আমার মনে হচ্ছিল- আমার ছেলে একদম জ্যাকি চ্যানের চেহারা পেয়েছে।"

দুবাইয়ে এক অনুষ্ঠানে শাহরুখ ও জ্যাকি চ্যান

চেহারায় হয়ত আসলেই মিল ছিল, কিন্তু কর্মে মিলটা আসেনি। নিজের ছেলেকে বাঁচানোর জন্য ইতিমধ্যে শাহরুখ নিজের সর্বশক্তি প্রয়োগ করেছেন, যেকোনো বাবাই সেটা করবেন। সতীশ মানশিন্ডের মত উকিলকে নিয়োজিত করেছেন ছেলের জন্য, যিনি কিনা সঞ্জয় দত্ত, সালমান খান, গুলশান কুমার আর হালের রিয়া চক্রবর্তীর কেস লড়েছেন। পার শুনানিতে যিনি প্রায় ১০ লাখের মত চার্জ করেন। 

আরিয়ান খান হয়ত শাস্তি পাবেন বা মুক্তি পাবেন। তবে বাবা হিসেবে শাহরুখ খান নিজের জায়গাটা ক্লিয়ার করবেন কিনা জ্যাকি চ্যানের মতো, বা সেরকম 'জ্যাকি চ্যান' টাইপের বাবা হওয়ার ইচ্ছা তার আছে কিনা- সেটা সময়ই বলবে।


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা