'অতি উত্তম' নামের এই ছবিতে সৃজিতের নায়ক স্বয়ং উত্তম কুমার, বাঙালি যাকে মহানায়কের আসনে বসিয়েছে চিরদিনের জন্য। কিন্ত এটা কী করে সম্ভব? উত্তম তো মারা গেছেন সেই ১৯৮০ সালেই? তাকে কীভাবে ফিরিয়ে আনা হবে?

এইতো কয়েকদিন আগেই সৃজিতের হাত ধরে বাংলার ঘরে এসেছে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। গুণী এই নির্মাতা এবার হাত দিয়েছেন বাংলা ছবির ‘অতি উত্তম’ সফরনামা লেখার কাজে। গতকালই নতুন ছবির ঘোষণা সেরে ফেললেন সৃজিত, ছবির নাম ‘অতি উত্তম’। আর এই ছবিতে সৃজিতের নায়ক স্বয়ং উত্তম কুমার, বাঙালি যাকে মহানায়কের আসনে বসিয়েছে চিরদিনের জন্য। মহানায়কের চরিত্রে উত্তম নিজেই থাকছেন, সেখানে অন্য কোনও অভিনেতা থাকবেন না। কিন্ত এটা কী করে সম্ভব? উত্তম তো মারা গেছেন সেই ১৯৮০ সালেই? তাকে কীভাবে ফিরিয়ে আনা হবে? 

এই ছবির গল্প এগিয়ে যাবে মহানায়ক এবং তার এক একনিষ্ঠ ভক্তকে কেন্দ্র করে। সেই ভক্ত ব্যক্তিগত জীবনে প্রেমজনিত সমস্যায় পড়লে প্রিয় নায়কের দ্বারস্থ হয়। এমনটাই তো হবার কথা, কারণ উত্তমই তো ছিলেন বাঙালির ‘কিং অব রোম্যান্স’! ভক্তকে উদ্ধার করতে সেই সময় প্রকট হন স্বয়ং মহানায়ক।

কিন্তু উত্তম জুমার পর্দায় ফিরবেন কীভাবে? এই প্রশ্নের উত্তরে সৃজিত জানালেন, উত্তম কুমারের ৫৪টি ছবি ফুটেজ নিয়ে ভিএফএক্সের মাধ্যমে পর্দায় জীবন্ত করে তোলা হবে তাঁকে। মহানায়কের হাঁটাচলা, কথা বলা, নানা ধরনের অভিব্যক্তি এ ভাবেই আবার পর্দায় ফুটিয়ে তোলার পরিকল্পনা করেছেন সৃজিত। এই ছবিতে দর্শকের সঙ্গে বেশ কিছু নতুন মুখের পরিচয় করাবেন তিনি। অনিন্দ্য সেনগুপ্ত, রোশনি ভট্টাচার্য এবং জিনা তরফদার রয়েছেন সেই তালিকায়। উত্তম কুমারের নাতি গৌরব চট্টোপাধ্যায়কেও দেখা যাবে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায়। এ ছাড়াও থাকবেন লাবণী সরকার এবং শুভাশিস মুখোপাধ্যায়।

বাঙালীর জন্য উত্তম কুমার বড্ড সেন্সেটিভ বিষয়। পান থেকে চুন খসলেও পিঠের চামড়া থাকবে না। এই ছবিটা কি তবে সৃজিতের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হতে চলেছে? সেই প্রসঙ্গে কলকাতার দৈনিক 'এই সময়'কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে সৃজিত বলেছেন- ‘কোনও ঝুঁকি নেই, কারণ উত্তমের চরিত্রে অন্য অভিনেতাকে দেখার ব্যাপার নেই। তবে পরিশ্রম অনেক। ৫৪টা ছবির দৃশ্য দেখে, সেগুলো সাজিয়ে চিত্রনাট্য লেখা। এই ছবির স্বত্ব পেতে দিনের পর দিন প্রযোজকদের ভাঙা-ভাঙা অফিসে ঘুরে বেরিয়েছি। যেদিন সব স্বত্ব হাতে এল, নিশ্চিত হলাম ছবিটা করব।’ 

টানা ৩ বছর ধরে ছবির চিত্রনাট্য লিখেছেন সৃজিত। তার সঙ্গেই চলেছে উত্তম কুমারের ছবি নিয়ে নানা গবেষণা। পরিচালকের প্রথম ছবি ‘অটোগ্রাফের ১০ বছর পূর্তিতে এই ছবি মহানায়কের প্রতি তাঁর শ্রদ্ধার্ঘ্য। সৃজিতের কথায়, ‘‘অটোগ্রাফ যেমন সত্যজিৎ রায় এবং উত্তমবাবুর প্রতি ট্রিবিউট ছিল, উত্তম কুমারের একনিষ্ঠ ভক্ত হিসেবে তাঁকে এই ছবির মাধ্যমে ফের ট্রিবিউট দিচ্ছি।”

তথ্যসূত্র কৃতজ্ঞতা- আনন্দবাজার পত্রিকা, এই সময়


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা