বাবরের জীবন নিয়ে ঠিকঠাক কাজ হলে প্রচুর প্রশংসা যেমন পাবে এই ওয়েব সিরিজ, কাজ ভালো না হলে, ইতিহাস কে বিকৃত করা হলে পুরো দক্ষযজ্ঞকে আস্তাকুঁড়ে ফেলে দিতেও কসুর করবেনা জনতা-জনার্দন। আগুন নিয়ে যে খেলা শুরু হয়েছে, সেটার শেষটা কেমন হয়, তা দেখারই এখন অপেক্ষা...

তার নাম মির্জা জহিরউদ্দিন মুহাম্মদ বাবর। যিনি পানিপথের প্রথম যুদ্ধে দিল্লীর 'লোদি' রাজবংশের সম্রাট ইবরাহিম লোদি কে পরাজিত করে ভারতবর্ষে মুঘল সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ভারতে কালের ব্যবধানে যত শাসক এসেছে, তাদের মধ্যে সবচেয়ে বৈচিত্র্যময় এবং শিল্প-সংস্কৃতিতে সমৃদ্ধ 'মোঘল' শাসকদের প্রতিষ্ঠাতা সম্রাট তিনিই।

তৈমুর লঙ্গ-এর বংশধর এবং মায়ের দিক থেকে চেঙ্গিস খানের বংশধর বাবর ছিলেন মির্জা ওমর সাঈখ বেগ এর পুত্র। জন্ম ফারগানা (বর্তমানে উজবেকিস্তান) প্রদেশের আনদিজান শহরে। প্রবল রঙের আধিক্যে ভরা তার জীবন। বাবার প্রয়াণের পরে মাত্র বারো বছর বয়সে ফারগানার সিংহাসনে আরোহন করেন তিনি। তবে সেখানে বেশিদিন থাকা হয় না৷ চাচার ষড়যন্ত্রে সিংহাসন হারাতে হয়৷ শুধু সিংহাসন না, হারাতে হয় আশ্রয়ভূমিও। ফারগানা থেকে পালিয়ে আসেন বাবর। সহায়সম্বলহীন অবস্থা থেকে তিনি লোকবল জুটিয়ে কিভাবে প্রথমে সমরকন্দ, এরপর ফারগানা, পরবর্তীতে ভারতবর্ষ জয় করেন... তা লিখতে গেলে চর্বিতচর্বণ হবে। সবারই এসব তথ্য জানা।

ভারতবর্ষে মোঘল সাম্রাজ্যের ক্রমবিন্যাস নিয়ে নানা বইও আছে। সম্রাট বাবর থেকে শুরু করে সম্রাট ঔরঙ্গজেব...সবার জীবনকাহিনী নিয়েও আলাদা বই আছে। ঐতিহাসিক বই যেমন আছে। আছে ফিকশনও। মোঘল সাম্রাজ্যকে নিয়ে খুব বিখ্যাত এক ফিকশন সিরিজ; অ্যালেক্স রাদারফোর্ডের 'এম্পায়ার অব দ্য মোঘল।' সেই সিরিজের প্রথম বই 'এম্পায়ার অব দ্য মোঘল: রাইডার্স ফ্রম দ্য নর্থ' অবলম্বনে টিভি সিরিজ 'দ্য এম্পায়ার' আসছে স্ট্রিমিং সাইট ডিজনি প্লাস হটস্টারে। যার ট্রেলার মুক্তি পেলো সম্প্রতি।

ট্রেলারের সিনেম্যাটোগ্রাফী মুগ্ধ করার মতন! 

রাদারফোর্ডের 'এম্পায়ার' সিরিজের প্রথম বইয়ে বাবরের উত্থান ও সংগ্রামের যে গল্প আমরা পাই, দুই মিনিট সাইত্রিশ সেকেন্ডের ট্রেলারেও একই সুর। ফারগানার সিংহাসনে বাবরের অভিষেক, নিজের চাচার মাধ্যমে সিংহাসনচ্যুতি, পরবর্তীতে পালটা আক্রমণ, সমরখণ্ড দখল, শেবানী খান নামক প্রবল পরাক্রমশালী প্রতিপক্ষের মোকাবেলা, পাশাপাশি পারিবারিক কিছু টানাপোড়েন... সব মিলিয়ে টান টান সাসপেন্স। ট্রেলার দেখে একটা জিনিস সুস্পষ্ট, বিস্তর অর্থকড়ি খরচ করেই এই ওয়েব সিরিজ নির্মিত হচ্ছে। যুদ্ধের বিস্তীর্ণ ক্যানভাস, সেট ডিজাইন এবং দারুণ গ্রাফিক্স...সে ইঙ্গিতই দিচ্ছে। অনেকে এই ওয়েব সিরিজকে 'ভারতের গেম অব থ্রোন্স'ও বলছেন। অবশ্য ট্রেলারের কিছু কিছু দৃশ্য গেম অব থ্রোন্সকে স্মরণও করাচ্ছিলো! 

তবে যত যাই হোক না কেন, অঢেল অর্থব্যয় কিংবা গ্রাফিক্সের প্রবল কারিকুরিতেই এই নির্মাণ আসুক না কেন, দর্শকের মূল লক্ষ্য অবশ্যই থাকবে গল্পে। বিগত অতীতে আমরা দেখেছি, ভারতের, বিশেষ করে বলিউডের বিগ বাজেটের অজস্র ইতিহাস-আশ্রিত নির্মাণ শুধুমাত্র ইতিহাস-বিকৃতি এবং দূর্বল চিত্রনাট্যের কারণে আবর্জনায় পরিণত হয়েছে। তাই এক্ষেত্রেও এটাই দেখার বিষয়, নির্মাতা কোন পথে হেঁটেছেন! সস্তা গিমিকের লোভ সামলে শুধুমাত্র বাবরের সত্যিকার গল্পেও যদি কেন্দ্রীভূত রাখা যায় গল্পের দিকপথ, তাহলেও 'দ্য এম্পায়ার' মনে রাখার মতনই এক কাজ হবে। শাবানা আজমি, কুনাল কাপুর, দিনো মরিয়া, দ্রাষ্টি ধামির মত কুশীলবেরা আছেন এখানে। নির্মাতা মীতাক্ষরা কুমার এই কুশীলবদের কিভাবে পরিচালনা করছেন, লক্ষ্য থাকবে সেদিকেও। 

নামজাদা সব কুশীলবে সমৃদ্ধ 'দ্য অ্যাম্পায়ার' 

আগস্টের সাতাশে ডিজনি প্লাস হটস্টারে আসবে এই ওয়েব সিরিজ। 'অ্যাম্পেয়ার অব দ্য মোঘল' সিরিজ বহু মানুষ পড়েছে। বাবরের জীবনকাহিনীও বহু মানুষের নখদর্পনে। তাই ঠিকঠাক কাজ হলে প্রচুর প্রশংসা যেমন পাবে এই ওয়েব সিরিজ, কাজ ভালো না হলে পুরো দক্ষযজ্ঞকে আস্তাকুঁড়ে ফেলে দিতেও কসুর করবেনা জনতা-জনার্দন। আগুন নিয়ে যে খেলা শুরু হয়েছে, সেটার শেষটা কেমন হয়, সেটা দেখার অপেক্ষা আর মাত্র ক'দিনের। 


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা